বিয়ের দু’সপ্তাহ পরে জানা গেল কনে আসলে ছেলে!

বিশ্বে বিভিন্ন ধরণের অবাক ও হাসির ঘটনা প্রায়ই ঘটে থাকে। সেসব দেখে অনেক সময় বাস্তব যুক্তিও খুঁজে পাওয়া যায় না। সম্প্রতি এমনই একটি ঘটনা ঘটেছে উগান্ডার এক ব্যক্তির সঙ্গে। তিনি বিয়ের দুই সপ্তাহ পরে জানতে পারলেন তার স্ত্রী আসলে একজন পুরুষ।

জানা গেছে, বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হওয়া উগান্ডার ওই ব্যক্তি একজন ইমাম। কিন্তু তিনি নারী ভেবে যাকে বিয়ে করেছিলেন তিনি আসলে ছিলেন পুরুষ। যদিও বিয়ের দুই সপ্তাহ পরেও এই সত্য তিনি খুঁজে পাননি। তার অজান্তেই এই সত্যি খুঁজে বের করেন তাদের এক পড়শি। তিনি দেখেন ওই ইমামের স্ত্রী প্রাচীর ডিঙিয়ে অন্য একজনের বাড়িতে ঢুকে সেখান থেকে জিনিসপত্র চুরি করেছিল।

স্থানীয় থানাতে অভিযোগ দায়ের করার পরে ওই ইমাম এবং তার স্ত্রী সেখানে যান। থানাতে যাওয়ার সময়ে ওই ইমামের স্ত্রীর পড়নে ছিল মুসলিম পোশাক এবং পায়ে ছিল সাধারণ চটি। নিয়মানুযায়ী নারী পুলিশ দিয়ে তল্লাশি করাতে গিয়ে বেরিয়ে আসে আসল সত্য।
জানা যায়, আসলে স্ত্রী সেজে থাকা ওই ব্যক্তি আসলে নারী নন, একজন পুরুষ। নারী সেজে ওই ইমামের সঙ্গে বিয়ে করেছিলেন জানিয়েছেন তদন্তকারী পুলিশ অফিসারেরা।

পুলিশি জেরার মুখে ওই ব্যক্তি জানান, ইমামকে আর্থিক প্রতারণা করার জন্যই বিয়ের ছলনা করেছিলেন তিনি।

ওই ইমাম জানিয়েছেন তিনি বিয়ে করার জন্য প্রস্তুত ছিলেন, তবে মনের মত কাউকে পাচ্ছিলেন না। কিন্তু হিজাব পরা অবস্থাতে ওই ব্যক্তিকে দেখে নারী ভেবে তিনি বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন। অভিযুক্ত ব্যক্তি তা গ্রহণ করে বিয়েও করেছিলেন।

অভিযুক্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলেও জানা গেছে। সূত্র : কলকাতা২৪x৭ডটকম।