ভারতের সীমান্তে চীন নেই, বলে লোক হাসালেন ট্রাম্প

ছিলেন ব্যবসায়ী, হয়ে গেলেন রাজনীতিবিদ। এরপর ঢুকলেন হোয়াইট হাউসে। তাও আবার স্বয়ং প্রেসিডেন্ট হয়ে। অনেক সময়ে নানা বেফাঁস কথাবার্তা ও অঙ্গভঙ্গির জন্য হাসির পাত্র হয়েছেন। জ্ঞানশূন্যতার পরিচয় দিয়েছেন অনেকবার। এবার নেপাল ও ভুটানকে ভারতের অংশ বলে ডোনাল্ড ট্রাম্প পড়েছেন নতুন বিতর্কে। ভারতের সীমান্তে চীন নেই বলে নিজের ‘জ্ঞান’ জানিয়ে এ বিতর্কে পড়েছেন ট্রাম্প।

ট্রাম্প নাকি তার এই ভৌগোলিক জ্ঞান প্রকাশ করেছেন খোদ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছে। মার্কিন প্রেসিডেন্টের ভৌগোলিক ‘জ্ঞানের’ এ বিষয়টি প্রকাশ পেয়েছে পুলিৎজার পুরস্কারজয়ী দুই সাংবাদিক ফিলিপ রাকার ও ক্যারোল ডি লিওনিংয়ের লেখা ‘এ ভেরি স্ট্যাবল জিনিয়াস’ বইয়ে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে প্রথম তিন বছরে ডোনাল্ড ট্রাম্পের যেসব ঘটনা আলোড়ন তুলেছে, সেসব নিয়ে লেখা হয়েছে বইটি।

ওই বইয়ে উল্লিখিত ঘটনার বরাত দিয়ে বুধবার (১৫ জানুয়ারি) ওয়াশিংটন পোস্ট প্রতিবেদন প্রকাশ করে। তাতে বলা হয়েছে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদির সঙ্গে এক বৈঠকে ট্রাম্প নাকি আলোচনার এক পর্যায়ে বলে ওঠেন, ‘এমনতো নয় যে, তোমাদের সীমান্তে চীন আছে।’

উল্লেখ্য, ভূখণ্ডের বৃহৎ দুই জনগোষ্ঠীর দেশ যথাক্রমে চীন ও ভারতের সীমানা ৩ হাজার ৪৮৮ কিলোমিটার। অরুণাচল-লাদাখসহ অনেক বিবাদমান অঞ্চলঘেঁষা এই সীমান্তকে বলা হয় ‘লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল’ (এলএসি)। এই সীমান্তে গত ক’বছরেও উত্তেজনায় জড়িয়েছে ভারত ও চীন। এমনকি ডোকলাম মালভূমি ঘিরে দু’পক্ষ সীমান্তে ব্যাপক সৈন্য-সামন্তও জড়ো করে বলে এক ধরনের যুদ্ধাবস্থা বিরাজ করছিল।

এই সীমান্ত ইস্যু বিশ্ব সংবাদমাধ্যমে প্রায়ই শিরোনাম হলেও ডোনাল্ড ট্রাম্পের ওই বাক্য যেন বাকরুদ্ধ করে দেয় মোদিকে। বিস্ময়ে যেন তার চোখ বেরিয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়। তবে স্তম্ভিত মোদি খানিকবাদেই স্বাভাবিক হয়ে ওঠেন। বইয়ে ট্রাম্পের একজন উপদেষ্টার বরাত দিয়ে বলা হয়, ‘মোদি যখন সে বৈঠক ছেড়ে যাচ্ছিলেন, তিনি বোধ হয় বলছিলেন যে- এই লোকটা সিরিয়াস নয়। আমি অংশীদার হিসেবে তার ওপর ভরসা করতে পারি না।’