পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে অস্ট্রেলিয়ায়! কমছে সংক্রমণ

অস্ট্রেলিয়ায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বিষয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন দেশটির স্বাস্থ্য বিভাগের একাধিক কর্মকর্তা।তারা বলছেন, অস্ট্রেলিয়ায় করোনা সংক্রমণ ছড়াচ্ছে ধীরে ধীরে।তবে তারা সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন যে, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞা কয়েক মাস মেনে চলতে হবে।

অস্ট্রেলিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেয়া তথ্যে দেখা গেছে, গত ২৪ ঘন্টায় অস্ট্রেলিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা ১৮১ জন বেড়েছে।

অস্ট্রেলিয়ায় করোনাভাইরাসে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫,৬৩৫-এ পৌঁছেছে।কোভিড-১৯ এ শ্বাসকষ্টজনিত কারণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৪ জনে।

এ থেকে বোঝা যায় যে, অস্ট্রেলিয়ায় দৈনিক সংক্রমণের হার ৫ শতাংশের নীচে।মার্চের মাঝামাঝি সময়ে যেমনটা দেখা গিয়েছিল সে অবস্থা এখন আর নেই।

নিউ সাউথ ওয়েলস (এনএসডাব্লু) এর স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিষয়ক বিভাগের পরিচালক জেরেমি ম্যাকএন্টি জানান, নতুন সংক্রমণের বক্ররেখার সমতল পর্যায় শুরু হয়েছে। পরিস্থিতি আরও ভালো হবে বলে আশাবাদ রয়েছে।

ম্যাকএন্টি বলেছেন, আমরা আশাবাদী হতে চাই। তবে পরিসংখ্যান নিয়ে অতি আত্মবিশ্বাসী নই।

অস্ট্রেলিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী গ্রেগ হান্ট শনিবার সতর্ক দিয়ে বলেছেন, ভালো লক্ষণ সত্ত্বেও এখনও পরবর্তী ছয় মাসের জন্য অস্ট্রেলিয়ানদের অন্যদের থেকে দূরত্ব বজায় রাখতে হবে।

স্কাই নিউজকে হান্ট বলেছেন, আমাদের ছয় মাসের জন্য কঠিন সময় যাপন করতে হবে।

এদিকে, ২৯ শে মার্চ গুগল কমিউনিটি একটি প্রতিবেদন তৈরী করে। সেখানে সময়ের সাথে সংক্রমণের প্রবণতাগুলির তালিকা করা হয়।

এতে দেখা গেছে যে অস্ট্রেলিয়ানরা রেস্তোঁরা এবং শপিং সেন্টারে তাদের যাতায়াত কেবল ৪৫ শতাংশ হ্রাস করেছে। অন্যদিকে মুদি দোকানে যাতায়াত কেবল পাঁচ ভাগ হ্রাস পেয়েছে।

এ তথ্য গত সপ্তাহে কঠোর বিধিনিষেধের প্রবর্তনের আগে দেয় হয়।

গত সপ্তাহের বিধিনিষেধে জনসাধারণের সমাবেশ দুজন ব্যক্তির মধ্যে সীমাবদ্ধ করা হয়। বেশিরভাগকে বাড়িতে থাকার জন্য অনুরোধ করা হয়।এতে রাজ্য সীমানা, ক্যাফে, ক্লাব, পার্ক এবং জিম বন্ধ করা হয়েছে।

বেশ কয়েকটি রাজ্য পুলিশকে স্পট-অন-স্পট জরিমানা এবং সম্ভাব্য জেল শর্তের মাধ্যমে আইন প্রয়োগের ক্ষমতাও দেয়া হয়।

কর্মকর্তারা জানান, সামাজিক দূরত্বের নিয়ম ভঙ্গের জন্য শনিবার ১৪২ জনকে জরিমানা করেছে ভিক্টোরিয়ার পুলিশ।

সূত্র : রয়টার্স