ক্লান্ত শরীরে প্রা’ণপণ চেষ্টা করেও রোগীকে বাঁ’চাতে পারে’ননি চিকিৎসক

করোনাভাইরাসের কারণে থ’মকে আছে বিশ্ব। বাংলাদেশেও এর ব্যতিক্রম নয়। বেড়েই চলছে আক্রা’ন্ত ও মৃ’তের সংখ্যা। শুরুতে করোনা রোগীদের চিকিৎসাসেবা নিয়ে নানা ধরনের অভি’যোগ থাকলেও এরইমধ্যে আক্রা’ন্তদের সুস্থ করতে গিয়ে মা’রা গেছেন অনেক চিকিৎসক। তবু দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন তারা। এমনই এক করোনাযো’দ্ধা ডা. নিজাম উদ্দিন মিজান। তিনি নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার।

মঙ্গলবার বিকেল থেকেই সঙ্গীদের নিয়ে করোনায় আক্রা’ন্তদের বাড়ি গিয়ে ওষুধ দেয়া, নতুন রোগীদের বাড়ি খুঁজে লকডা’উনের কাজ করেন ডা. নিজাম। এভাবে তিন জায়গায় ঘুরে এক বাড়িতে গিয়ে দেখেন রবিউল নামে একজনের প্রচ’ণ্ড শ্বা’সক’ষ্ট হচ্ছে। অক্সিজেনের মাত্রা মাত্র ৩৫ শতাংশ। এ সময় সঙ্গে থাকা একজনকে পাঠিয়ে দিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে অক্সিজেন সিলিন্ডার আনার জন্য। পরে অক্সিজেন দেয়া হলো রোগীকে। কিছুক্ষণের মধ্যেই অক্সিজেনের মাত্রা উঠে এলো ৯৬ শতাংশে।

সমস্যা দেখা দিল অক্সিজেন সরানোর পর। রোগীর অক্সিজেনের মাত্রা সঙ্গে সঙ্গে নামতে লাগলো। বাইরে থেকে অক্সিজেন দিলে রোগী ভালো থাকেন, সরালেই দ্রুত নেমে আসতে থাকে। এ রোগীকে বাসায় রাখা মানে মৃ’ত্যু নিশ্চিত, এ ভেবে রোগীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনার সিদ্ধান্ত নেন। হাসপাতালে এনে রোগীকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফেরাতে কেটে গেল আরো কয়েক ঘণ্টা।

রাত তখন এগারোটা। সারাদিন মানুষের চিকিৎসাসেবা দিয়ে অনেকটা ক্লান্ত ডা. নিজাম। পিপিই খুলে বিছানায় গা এলিয়ে দেয়ার জন্য শরীরটা ছেড়ে দিচ্ছে। ঠিক তখনই খবর এলো নিচে একজন রোগী এসেছেন। তার অবস্থা খুব খারাপ।

পিপিই পরেই নিচে নেমে গেলেন ডা. নিজাম। দেখলেন হাসপাতালের সামনে রাস্তায় এক কিশোর তার নিথর বাবাকে কোলে নিয়ে রাস্তায় বসে আছে। কাঁদতে কাঁদতে সাহায্য চাইছে সবার। তার বাবাকে বাঁচানোর জন্য আ’র্তনাদ করছে সে। আশেপাশে অনেকেই দাঁড়িয়ে আছে। কিন্তু কেউই সাহায্য করছে না।

ডা. নিজাম দ্রুত গিয়ে রোগীর নাড়ি চেক করলেন। পালস নেই। রোগীকে মাটিতে শুইয়ে দিয়ে সিপিআর দেয়া শুরু করলেন তিনি। একটা সময় পালস পেলেন। তখনো সিপিআর চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। সারাদিনের ক্লান্তির পর এ ক’ষ্টকর কাজটা করার জন্য শক্তিটুকুও যেন অবশিষ্ট নেই তার। এরপরও চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলেন এ চিকিৎসক। বিকেল থেকে পিপিই পরা, মুখে এন-৯৫ মাস্ক। ক্লান্তির সঙ্গে শ্বাস নিতেও অসুবিধা হচ্ছিল তার। আর পারছেন না তিনি।

করোনাযোদ্ধা এ চিকিৎসক ক্লান্ত হয়ে থেমে যেতেই কিশোর ছেলে দায়িত্ব নেয়। পাশে থেকে দেখে বুঝে গেছে কীভাবে সিপিআর দিতে হয়। বাবাকে বাঁচানোর চেষ্টায় ক্র’মাগত সিপিআর চালিয়ে যাচ্ছে সে। পাশে বসে রোগীর দিকে নজর রাখছিলেন ডা. নিজাম। হঠাৎ করেই রোগীর চোখ স্থির হয়ে গেল। এটা দেখেই দ্রুত পালস চেক করলেন তিনি। পালস নেই। তার চোখের সামনেই রোগী চলে গেলেন না ফেরার দেশে। ছেলেটা তখনো সিপিআর দিয়ে চলেছে। ওর কাঁধে আলতো করে হাত রাখলেন ডা. নিজাম। তার দিকে ঘাড় ঘুরিয়ে তাকালো ছেলেটা, এরপর বাবার মুখের দিকে। স্থির হয়ে গেল ছেলেটির দুটি হাত।

ডা. নিজাম উদ্দিন মিজান বলেন, প্রা’ণপণ চেষ্টা করেও পঞ্চাশোর্ধ্ব পবন দাসকে বাঁচাতে পারিনি। কারণ আমাদের হাসপাতালে ভেন্টিলেটর সুবিধা নেই। ভেন্টিলেটর থাকলে হয়তো তাকে বাঁচানো যেত। তিনি বাঁচলে নিজেও স্বস্তি পেতাম।

ডা. নিজামের বাড়ি নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার আমিশাপাড়া ইউপির পদিপাড়ায়। তিনি ঢাকাতেই লেখাপড়া করেছেন। গেল বছরের ১৯ ডিসেম্বর তিনি হাতিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের যোগ দেন। তিনি ৩৯তম বিএসএসে সরকারি চাকরি পান। মানব সেবার ব্রত নিয়ে এ পেশায় এসেছেন করোনাযোদ্ধা এ চিকিৎসক।