করোনা টেস্টের রিপোর্ট নিয়ে ভোগান্তিতে বিদেশগামীরা

করোনা টেস্টের নমুনা সঠিক সময়ে দিতে পারলেও পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকতে হচ্ছে বিদেশগামীদের। তবে স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে, পর্যায়ক্রমে ভোগান্তি কমিয়ে সেবা নিশ্চিত করার বিষয়টি বিবেচনায় রয়েছে। বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ, বিদেশে রিপোর্ট গ্রহণযোগ্য করতে বিভিন্ন সংস্থার সমন্বয়ে গঠিত বোর্ডের মাধ্যমেই সনদ দেয়া উচিত।

দীর্ঘলাইনে ঘন্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা, রাজধানীর মহাখালীর ডিএনসিসি মার্কেট আইসোলেশন সেন্টারে। নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট পেতে ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে বিদেশগামীদের। ২০টি বুথে নমুনা সংগ্রহ করা হলেও পরীক্ষার রিপোর্ট দেয়া হচ্ছে মাত্র দুটি কাউন্টারে।

নমুনা পরীক্ষায় রিজেন্ট-জেকেজির জালিয়াতি, বাংলাদেশ থেকে যাওয়া ব্যক্তিদের শরীরে কোভিড ১৯ ভাইরাস ধরা পড়ায় কয়েকটি দেশ ঢাকার সঙ্গে বিমান যোগাযোগ স্থগিত করে। এ পরিপ্রেক্ষিতে বিদেশগামীদের দেশের ১৬টি কেন্দ্রে নমুনা পরীক্ষার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। নমুনা দেয়ার পর আইসোলেশনে থাকার সরকারি নির্দেশনা কতটুকু কাযকর হবে তা নিয়েও রয়েছে সংশয়।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিদেশে রিপোর্ট অধিক গ্রহণযোগ্য করতে বিভিন্ন সংস্থার সমন্বয়ে গঠিত বোর্ডের মাধ্যমে সনদ দেয়া উচিত।

অধ্যাপক ডা. বেনজীর বলেন, মেডিকেল বোর্ড একসাথে তাদের শারীরিক পরীক্ষা করবে, তারা এক ধরনের হেলথ পাসপোর্ট দেবে।

স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে, পর্যায়ক্রমে সবকিছু সহজ করার বিষয়টি বিবেচনায় রয়েছে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় স্বাস্থ্য সচিব মো. আব্দুল মান্নান বলেন, চারটি মন্ত্রণালয়ের আন্তঃমন্ত্রণালয় সভাতেই এ সিদ্ধান্তগুলো হয়েছে। কাজেই যখন কোনো কিছু চেঞ্জ হবে কোনো কিছু করবো, সবার সাথে বসেই করতে হবে।

বিমান যাত্রার ৭২ ঘণ্টা আগে পাসপোর্ট ও টিকেট দেখিয়ে নমুনা দিতে হয়। আর যাত্রার ২৪ ঘণ্টা আগে সংগ্রহ করতে হবে রিপোর্ট।