ফ্রান্সের মসজিদে আবারও বন্দুকধারীর হামলা

ফ্রান্সের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলীয় এক মসজিদে বন্দুক হামলা হয়েছে। স্থানীয় সময় সোমবার বিকেলে বেয়োন্নে এলাকায় সংঘটিত হামলায় আহত দুই ব্যক্তিকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ান জানিয়েছে, তাদের অবস্থা গুরুতর হলেও স্থিতিশীল রয়েছে। এই ঘটনায় সন্দেহভাজন হামলাকারী হিসেবে ৮৪ বছর বয়সী এক ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ। আটক ব্যক্তি ডানপন্থী প্রার্থী হিসেবে স্থানীয় নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন।

২০১৫ সালে ব্যাঙ্গাত্মক ম্যাগাজিন শার্লে হেব্দোতে উগ্র ইসলামপন্থী হামলায় ১২ জন নিহত হওয়ার পর ফ্রান্সে মসজিদকে একাধিকবার লক্ষ্যবস্তু বানানো হয়েছে। আগুন, গ্রেনেড কিংবা বন্দুক হামলার শিকার হয়েছে বেশকিছু মসজিদ।সোমবারের হামলা প্রসঙ্গে ফ্রান্সের পুলিশ জানিয়েছে, হামলাকারী ব্যক্তি মসজিদের দরজায় আগুন দেওয়ার চেষ্টা করে। তখন তাকে থামানোর চেষ্টা করলে গুলিবর্ষণ শুরু করে।

পুলিশের দাবি, পালানোর আগে ওই ব্যক্তি একটি গাড়িতে আগুন দেয়। পরে দশ মাইল দূরে তার বাড়ির কাছ থেকে তাকে আটক করা হয়। আহত দুই ব্যক্তির বয়সই ৭০ বছরের বেশি। তারা মসজিদে আসা মুসলিম বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, সন্দেহভাজন হামলাকারী ২০১৫ সালে লান্দিসের একটি স্থানীয় নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছিলেন। দক্ষিণপন্থী দল মেরিন লা পেন-এর হয়ে প্রথম রাউন্ডে ১৮ শতাংশ ভোট পেয়েছিলেন। পরে এই দলটি ন্যাশনাল র‍্যালি নামে আত্মপ্রকাশ করে।

ন্যাশনাল র‍্যালির নেতা নিকোলাস বে একটি টিভি চ্যানেলকে ওই ব্যক্তির প্রার্থী হওয়ার খবর নিশ্চিত করেছেন। তবে তিনি জানান, দলের মতাদর্শ পছন্দ না হওয়ায় পরে ওই ব্যক্তি দল ছেড়ে যায়। নিকোলাস বে বলেন, সে একজন উগ্রবাদী যার স্থান আমাদের দলে নেই। সে দল ছেড়ে গেছে।

ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রোন হামলার নিন্দা জানিয়ে বলেছেন, ‘এই ঘৃণা বরদাস্ত করবে না প্রজাতন্ত্র’। মুসলমান নাগরিকদের সুরক্ষার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।